ফিনিক্স বাংলায় সকলকে স্বাগত। আজ আমরা আলোচনা করবো কিভাবে হ্যাকার ফেসবুক একাউন্ট হ্যাক করে। 


একটি জিনিস পরিষ্কার করে দিই, আপনার কোনো ভুল না থাকলে কেউ আপনার ফেসবুক হ্যাক করতে পারবে না। যে সমস্ত একাউন্ট হ্যাক হয় সেই একাউন্টের মালিকেরা কিছু না কিছু ভুল করে থাকে। ফলে তাদের একাউন্ট হ্যাক হয়।


চলুন তবে দেখে নেওয়া যাক এমন ৫ টি পদ্ধতি যে পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে কেউ আপনার একাউন্ট হ্যাক করতে পারে।  


(ক) প্রথম যে পদ্ধতিতে ফেসবুক একাউন্ট হ্যাক হয় সেটি হলো “ফিসিং অ্যাট্যাক”


বর্তমানে হ্যাকিং-এ যে পদ্ধতি সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয় সেটি হচ্ছে ফিসিং অ্যাট্যাক। এই পদ্ধতিতে হ্যাকার আপনাকে যে কোনো ধরনের লিঙ্ক বা ইমেল পাঠিয়ে আপনার দ্বারা সেখানে লগিন করায় এবং পরে আপনার পাসওয়ার্ড ও ইউজার নেম ব্যবহার করে আপনার ফেসবুক নিজের মত পরিচালনা করে। তাই কেউ কোনো লিঙ্ক পাঠিয়ে সেখানে লগিন করতে বললে ভুলেও করবেন না।


(খ) দ্বিতীয় যে পদ্ধতিতে হ্যাকার আপনার একাউন্ট হ্যাক করতে পারে সেটি হলো “কি লগার”


কি লগার একটি সফটওয়্যার। যা হ্যাকার কোনোভাবে আপনার কম্পিউটারে ইনস্টল করে দিতে পারে। যদি একবার এটি ইস্টল করে দেওয়া হয় তবে আপনি আপনার কম্পিউটারে যতরকমের কি (পাসওয়ার্ড) ব্যবহার করবেন, সমস্ত সেই হ্যাকারের কাছে চলে যাবে। 


Warning%2Bof%2Bthe%2B5%2Bprocess%2Bof%2BFacebook%2Bhacking%2B%25283%2529


(গ) তৃতীয় যে পদ্ধতিতে হ্যাকার আপনার একাউন্ট হ্যাক করতে পারে সেটি হলো “স্পাই অ্যাপ বা সফটওয়্যার”। 


এটিও অনেকটা কি লগারের মতনই। তবে এটি শুধু মাত্র কি নয় সমস্ত তথ্য হ্যাকারের হাতে পৌঁছে দেয়। এবং হ্যাকার চাইলে সে পুরো মোবাইল ও কম্পিউটার মনিটর করতে পারে। হ্যাকারের কাজ শুধু থাকে আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে “স্পাই অ্যাপ” বা “স্পাই সফটওয়্যার” ইস্টল করে দেওয়া। 


(ঘ) চতুর্থ যে পদ্ধতিতে হ্যাকার আপনার একাউন্ট হ্যাক করতে পারে সেটি হলো “কুকিং স্টিলিং”।


এটি খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি জিনিস। আপনি যদি কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকেন তবে আপনার সঙ্গে এটি ঘটতে পারে। এটিতে হ্যাকার একটি পেনড্রাইভ আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপে ঢোকায় এবং সঙ্গে সঙ্গে আপনার কম্পিউটারের ব্রাউজারে যত সাইটের ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড সেভ করা থাকে সমস্ত কপি হয়ে সেই পেনড্রাইভে চলে যায় এবং হ্যাকার পরে এটাকে নিজের মত কাজে লাগায়। 


(ঙ) পঞ্চম যে পদ্ধতিতে হ্যাকার আপনার একাউন্ট হ্যাক করতে পারে সেটি হলো “Brute Force Attack”.


এই পদ্ধতিতে হ্যাকার নিজের কম্পিউটারে বিভিন্ন ধরনের পাসওয়ার্ড ট্রায় করে, অবশ্য হ্যাকার নিজে ট্রায় করে না এই পদ্ধতি একাই ট্রায় করে এবং যে কারো একাউন্টের পাসওয়ার্ড ম্যাচ করে দেয় যা দিয়ে হ্যাকার আপনার একাউন্ট লগিন করতে পারে।


Warning%2Bof%2Bthe%2B5%2Bprocess%2Bof%2BFacebook%2Bhacking%2B%25281%2529
netaji%2Bsubhas%2Binstitute%2Bof%2Btechnology%2Brecruitment%2B2021%2B%25284%2529

   হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ লিঙ্ক ঃ- Whatsapp