How-to-solve-sleeping-problems-without-medicine

বর্তমান সময়ে বেশিরভাগ মানুষই ঘুমের সমস্যা নিয়ে সবসময চিন্তায় থাকেন কারন তাদের ঘুম আসে না। গোটারাত এপাস-ওপাস করে এবং অবশেষে না ঘুমিয়েই রাত কাবার হয় ফল স্বরুপ পরের দিন শরীর ক্লান্ত থাকে। কাজে মনোযোগ বসাতে পারে না। আজ আমরা ঘুম না আসার কারন নিয়ে আলোচনা করবো না। আজ আমরা সহজে ঘুম আসার কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করবো।

(ক) ঘুমের টাইম একটি করুন যদি রোজ আপনি রাত ১১ টায় ঘুমোতে যান তবে চেষ্টা করুন সেই সময়টা মেইনটেইন করার। আপনি যদি একদিন ১১ টায়, একদিন ১ টায় ঘুমোতে যান তবে আপনার ঘুমের সাইকেল নষ্ট হবে। যা আপনার পরবর্তী দিনগুলতো প্রভাব বিস্তার করতে পারে।

(খ) যখন আপনি ঘুমোতে যাবেন তখন যেন আপনার চারিপাশে কোনোরকম শব্দ না হয়। অনেক সময় পাশের ঘরে টিভি চলে, যার শব্দ ঘুমের ব্যঘাত ঘটায়।

(গ) ঘুমের সময় আলো নিভিয়ে ঘুমোনোর চেষ্টা করুন এতে চোখে আলো না পরায় তারাতারি ঘুম আসে। অবশ্য আপনার যদি লাইট জ্বালিয়ে ঘুমোনোর অভ্যাস না থাকে তবেই।

(ঘ) ঘুমোতে যাবার দু’ঘন্টা আগে রাতের খাবার শেষ করুন। রাতে যতটা পারবেন হালকা খাবার খাবেন। এতে আপনার ঘুমের ওপর প্রভাব কম পরে।

(ঙ) সন্ধ্যার পর থেকে কোনো রকম পানীয় জাতীয় খাবার খাবেন না। যেমন চা-কফি ইত্যাদি এগুলো আপনার ঘুমের ব্যঘাত ঘটায়।

(চ) দিনের বেলা ঘুমোবেন না। ঘুম পেলেও বিভিন্ন ভাবে সেটাকে কাটানোর চেষ্টা করুন এবং রাতে আপনার ঠিক করা টাইমে শুতে যান।

(ছ) বিছানাটা শুধু ঘুমের জন্যই ব্যবহার করুন অনান্য কাজের জন্য বিছানা ব্যবহার করবেন না।

(জ) ঘুমোতে যাবার আগে কোনোরকম নেশা জাতীয় দ্রব্য খাবেন না। সেটা সিগারেট হোক বা অ্যালকোহল। এটি আপনার ঘুমে ব্যাঘাত ঘটাবে।

(ঝ) ঘুমোতে যাবার আগে গরম দুধ, বাদাম বা টকদই জাতীয় খাবার যদি আপনি খেতে পারেন তবে আপনার ঘুমটি ভালো হতে পারে।

(ঞ) সর্বশেষ বিভিন্ন রকম সমস্যা যেগুলো সাধারন ভাবে মানুষের জীবনে থাকে সেগুলোকে মেটানোর চেষ্টা করুন। বিভিন্ন রকম চাপ মানুষের ঘুমের প্রচুর ক্ষতি করে।

এরকম খবর সবার আগে পেতে ডানদিকের নীচে থাকা টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম গ্রুপে যুক্ত হন।