How-to-apply-for-Voter-ID-Card-at-online

আপনার বা আপনার পরিবারের সকল প্রাপ্তবয়স্ক সদস্যের ভোটার কার্ড রয়েছে তো? যদি না থেকে থাকে তবে এই খবরটি আপনার জন্য। ভারতীয় নাগরিকদের ভোটদানের অধিকার নিশ্চিত করতে ভোটার কার্ডের ভূমিকা অপরিসীম। কিন্তু অনেকক্ষেত্রেই দেখা যায় সদ্য ভোটাধিকার প্রাপ্ত নাগরিকদের ভোটার কার্ডের জন্য আবেদনের ক্ষেত্রে অনেক জটিলতা তৈরি হয়। অনেকক্ষেত্রে ১৮ বছরের বেশি বয়সী নাগরিকদের ক্ষেত্রেও দেখা যায় নানা কারণে ভোটার লিস্টে নাম অনুপস্থিত এবং ভোটার কার্ড নেই। এবার ভোটার কার্ডের জন্য আবেদনের সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি আপনি বাড়িতে বসে অনলাইনেই সম্পন্ন করতে পারবেন (How to apply for voter id at online)।

চলুন তবে দেখে নেওয়া যাক, প্রাপ্তবয়স্ক মহিলা বা পুরুষদের ভোটার কার্ডের জন্য কিভাবে আবেদন করবেন:-

১. প্রথমে আপনাকে কেন্দ্রীয় সরকারের নির্বাচন কমিশনের ওয়েসাইট https://nvsp.in/ এ যেতে হবে।
২. এরপর ওয়েব পেজটির একেবারে ডানদিকে যে লগ ইন (Login) অপশনটি রয়েছে তাতে ক্লিক করতে হবে। এবং তারপর Don’t have account , Register as a new user লেখাটির ওপর ক্লিক করতে হবে।
৩. এরপর আপনার ফোন নম্বর এবং ক্যাপচা কোড সঠিকভাবে পূরণ করে সাবমিট করলে আপনার ফোনে একটি ওটিপি (OTP) আসবে।
৪. এরপর এই ওটিপি (OTP) টি সঠিকভাবে পূরণ করলে আপনার সামনে একটি ফর্ম খুলে যাবে, সমস্ত আপশন গুলো আপনি সঠিক ভাবে পূরন করে রেজিষ্ট্রেশন কমপ্লিট করবেন। এবং মেইন পেজে চলে আসবেন।
৫. এরপর ইউজার নেম (User Name) এবং পাসওয়ার্ড (Password) সঠিকভাবে পূরণ করে ক্যাপচাটি লিখে লগ ইন (Login) করতে হবে।
৬. এরপর আপনার কাছে অনেকগুলি অপশন আসবে। এই অপশনগুলোর মধ্যে Fresh Inclusion/ Enrollment অপশনে ক্লিক করুন।
৭. এরপর আপনি ভারতে থাকছেন নাকি ভারতের বাইরে, ভারতে থাকলে আপনার রাজ্যের নাম পূরণ করে নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে।
৮. উপরোক্ত তথ্যগুলি সাবমিট করলেই আপনার সামনে ভোটার কার্ডের আবেদনের ফর্মটি আসবে।
৯. ফর্মটির তথ্যগুলি পূরণ করে, অ্যাড্রেস প্রুফ আপলোড করে এবং পরিবারের যেকোনো সদস্যের এপিক (Epic) নম্বর দিয়ে নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে।
১০. এরপর আপনার সামনে ফর্মের দ্বিতীয় অংশ আসবে। আপনার জন্ম তারিখ লিখে, বয়সের প্রমাণপত্র আপলোড করে নেক্সট অপশনে ক্লিক করুন। যদি আবেদনকারীর বয়স ১৮ বছরের বেশি হয়ে থাকে তবে সেই আবেদনকারীকে বয়সের ডিক্লেয়ারেশন ফর্ম ডাউনলোড করে, সেটি প্রিন্ট করে, সমস্ত তথ্য সঠিকভাবে লিখে আপলোড করতে হবে।
১১. এরপর আপনার সামনে ফর্মের আরেকটি অংশ আসবে। ফর্মের এই অংশে আবেদনকারীর পার্সোনাল ডিটেইলস এবং আবেদনকারীর পিতা, মাতা অথবা স্বামীর সমস্ত তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে এবং আবেদনকারী একটি ফটো আপলোড করে নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে। নেক্সট অপশনে ক্লিক করার পূর্বে অবশ্যই ফটোটির প্রিভিউ দেখে নেবেন।
১২. উপরোক্ত তথ্যগুলি সাবমিট করলেই আপনার সামনে ফর্মের আরেকটি অংশ আসবে। এই অংশটিতে আপনাকে আপনার ফোন নম্বর এবং ইমেইল আইডি থাকলে ইমেইল আইডি প্রদান করতে হবে। এছাড়াও আপনি যদি বিশেষভাবে সক্ষম হন তাহলে সে ব্যাপারে উল্লেখ করতে হবে।
১৩. এরপর আপনার সামনে ফর্মে আরেকটি অংশ আসবে। এই অংশটিতে আপনার বসবাসের জায়গা এবং তারিখ সঠিকভাবে লিখে নেক্সট অপশনে ক্লিক করতে হবে।
১৪. এরপর সাবমিট অপশনে ক্লিক করুন। সাবমিট অপশনে ক্লিক করলেই আপনার কাছে সমস্ত ফর্মটির একটি প্রিভিউ আসবে।
১৫. এছাড়াও আপনার কাছে একটি রেফারেন্স নম্বরও আসবে। এই রেফারেন্স নম্বর দিয়েই আপনারা Track Status এর মাধ্যমে ভোটার কার্ডটি কতদিনে আপনার কাছে পৌঁছাবে তা দেখতে পাবেন।
১৬. এরপর আপনাদের BLO অথবা SDO থেকে ডাকা হবে। সেখানে সমস্ত আসল নথিগুলো ভেরিফাই করার পর আপনার ভোটার কার্ড বৈধতা পাবে।

• অনলাইনে ভোটার কার্ডের আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় নথি:-
১. অ্যাড্রেস প্রুফ (পাসপোর্ট/ ড্রাইভিং লাইসেন্স/ ব্যাংক রেকর্ড/ ব্যাংকের পাসবুক/ ইলেকট্রিক বিল/ ওয়াটার বিল/টেলিফোন বিল/ইনকাম ট্যাক্স অ্যাসেসমেন্ট অর্ডার)
২. বয়সের প্রমাণপত্র (বার্থ সার্টিফিকেট/ পঞ্চম এবং অষ্টম শ্রেণীর মার্কশিট/ দশম শ্রেণীর সার্টিফিকেট/ প্যান কার্ড/ ড্রাইভিং লাইসেন্স)
৩. যদি আবেদনকারীর বয়স ১৮ বছরের বেশি হয়ে থাকে তবে সেই আবেদনকারীকে বয়সের ডিক্লেয়ারেশন ফর্ম ডাউনলোড করে, সেটি প্রিন্ট করে, সমস্ত তথ্য সঠিকভাবে লিখে আপলোড করতে হবে।
৪. আবেদনকরীর ফটো।

• কিভাবে কার্ডটি ডাউনলোড করবেন:-
১. https://nvsp.in/ পোর্টালে লগ ইন করবেন।
২. এরপর ডাউনলোড এপিক (Epic) এ যান।
৩. এরপর আপনার রেফারেন্স নম্বরটি পূরণ করুন এবং রাজ্য নির্বাচন করে সাবমিট করুন।
৪. এরপর আপনার রেজিস্টার মোবাইল নম্বরে একটি ওটিপি (OTP) আসবে।
৫. সঠিক ওটিপি দিয়ে সাবমিট করলে আপনার এপিক (Epic) টি ডাউনলোড করার অপশন আসবে।
৬. ডাউনলোড অপশন এ ক্লিক করে এপিক (Epic) টি ডাউনলোড করুন।

এছাড়াও আপনি যদি ভোটার কার্ডের হার্ডকপি রাখতে চান সেক্ষেত্রে আপনার ভোটার কার্ডের জন্য আবেদনের পর একটি পিভিসি ভোটার কার্ড আপনার ঠিকানায় পৌঁছে দেওয়া হবে পোষ্টের মাধ্যমে। এরকম আর‌ও তথ্য সবার আগে পেতে ডানদিকের নীচে থাকা টেলিগ্রাম  আইকনে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম গ্রুপে যুক্ত হন।