Post-Office-Attractive-Scheme

আপনি কী কম টাকা জমা করেই ভালো রিটার্ন পাওয়ার উপায় খুঁজছেন? তাহলে এই খবরটি আপনার জন্য। আজকের যুগে বহু সংস্থার নানারকম আকর্ষণীয় বিনিয়োগ অফার বাজারে এসেছে। কিন্তু এতো বিনিয়োগ স্কিমের মধ্যে সাধারণ মানুষ বুঝতেই পারেন না যে কোনটাতে বিনিয়োগ করা ঠিক হবে। তারমধ্যে আবার অনেকের টাকা হারানোরও ভয় থাকে। কিন্তু এবার থেকে আর চিন্তা করতে হবে না। বিভিন্ন সংস্থার বিনিয়োগ স্কিমে টাকা জমা না করে সরাসরি পোস্ট অফিসে নিজের টাকা বিনিয়োগ করুন। উল্লেখ্য, পোস্ট অফিস হলো এদেশের নাগরিকদের অন্যতম বিশ্বাসযোগ্য প্রতিষ্ঠান । কীভাবে পোস্ট অফিসের স্কিমে টাকা জমা করবেন, কী এই স্কিম সেই সম্পর্কে নীচে আলোচনা করা হলো।

পোস্ট অফিসে বিনিয়োগ সংক্রান্ত বহু স্কিম রয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় হলো সিনিয়র সিটিজেন স্কিম। এই স্কিমের দ্বারা প্রবীণ নাগরিকরা নিজেদের টাকা জমা করে শেষে ভালো সুদ সমেত রিটার্ন পেয়ে যাবেন। এখানে টাকা জমা করার সর্বোচ্চ কোনো লিমিট নেই। তাই যেকোনো ব্যক্তি নিজের প্রয়োজনমতো টাকা ইনভেস্ট করতে পারেন। এই বিনিয়োগ প্রকল্পে প্রথমে পাঁচ বছরের জন্য নিজের টাকা জমাতে পারবেন এবং পরে নিজের ইচ্ছা হলে আরও তিন বছর অবধি টাকা জমা করতে পারেন।

পোস্ট অফিসের এই সিনিয়র সিটিজেন স্কিমে সুদের হার ৭.৪% । আপনি যদি প্রতি মাসে ৮,৩৩৪ টাকা করে জমা করেন তাহলে পাঁচ বছর পরে সর্বমোট ৭ লক্ষ টাকা ফেরত পাবেন অর্থাৎ প্রায় ২ লক্ষ টাকা লাভ হবে। এছাড়া রেকারিং ডিপোজিট স্কিম নামক বিনিয়োগ প্রকল্পটির সুদের হারও ৭.৪% । এখানে ৬০ বছর ধরেও টাকা জমা করা যায়। ডিফেন্সের কর্মচারীরা ৫০ বছর বয়সে ও অন্যান্য সাধারণ মানুষেরা ৫৫ বছর বয়সেও এই স্কিমে বিনিয়োগ করতে পারবেন।

এই আকর্ষণীয় বিনিয়োগ প্রকল্পগুলো সম্মন্ধে বিস্তারিত জানতে পোস্ট অফিসের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে স্কিমগুলোর শর্তাবলীগুলো ভালো করে পড়ুন এবং জেনে বুঝে তবেই টাকা ইনভেস্ট করুন।

এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে