New-rule-about-withdrawal-of-Ration-starts-from-1st-August-Know-in-details-now

১লা আগস্ট,২০২২ থেকে রেশন তোলার ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গে নতুন নিয়ম চালু করা হচ্ছে। রেশন সামগ্রী তোলার জন্য এতোদিন হয় গ্রাহকদের আঙুলের ছাপ নেওয়া হতো, নাহলে মোবাইলে পাঠানো OTP এর মাধ্যমে গ্রাহকেরা ডিলারদের থেকে রেশন তুলতে পারতেন। এই পদ্ধতি নিয়ে রেশন ডিলারদের সঙ্গে সরকারি আধিকারিকদের মতবিরোধ লেগেই রয়েছে। তারই মধ্যে ১লা আগস্ট,২০২২ থেকে ফের নতুন একটি নিয়মের মাধ্যমে রেশন নেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছে (Ration Card Rule)। এর আগে মহারাষ্ট্র, বিহারে এই প্রক্রিয়া চালু ছিল। এবার পশ্চিমবঙ্গেও ধীরে ধীরে এই পরিষেবা শুরু হতে চলেছে। চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক, রেশন তোলার এই নতুন পদ্ধতিটি সম্পর্কে।

• রেশন তোলার ক্ষেত্রে নতুন পদ্ধতিটি কী?
এবার থেকে রেশন নিতে গেলে শুধু গ্রাহকদের আঙুলের ছাপ নিলেই চলবে না, আঙুলের ছাপের পাশাপাশি অত্যাধুনিক ইলেক্ট্রনিক পয়েন্ট অফ সেল মেশিন সংক্ষেপে ই-পস মেশিনের মাধ্যমে গ্রাহকদের আঙুলের ছবিও নেওয়া হবে। মূলত আরও নির্ভুল ও স্বচ্ছ ভাবে রেশন বন্টন প্রক্রিয়া পরিচালনা করার জন্যই ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অফ ইন্ডিয়া (UIDAI) অর্থাৎ আধার কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শুরু হলো পিএম কিষান যোজনার ভেরিফিকেশন প্রক্রিয়া, সকলের করা বাধ্যতামূলক

প্রসঙ্গত, এর আগে ই-পস মেশিনের মাধ্যমে শুধু গ্রাহকদের হাতের রেখার ছাপ নেওয়া হতো। এবার এই মেশিনে স্ক্যানের মাধ্যমে গ্রাহকদের আঙুলের ছাপের ছবি ধরে রাখা হবে। তবে আঙুলের ছবি ধরে রাখার জন্য ই-পস মেশিনের সফটওয়্যারে আপডেটের প্রয়োজন এবং তা করতে হবে মেশিনটিকে অবিকলভাবে চালু রেখেই।

তবে এই সফটওয়্যার আপডেট নিয়ে আবার অনেক সমস্যা দেখা গিয়েছে বলে রেশন ডিলাররা অভিযোগ করছেন। এদিকে আধার কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে চালু করা নতুন এই নিয়ম অনুসারে পুরোনো রেশন বন্টন পদ্ধতি চালু রেখেই নতুন এই সফটওয়্যার আপডেট করতে হবে। একবারে আপডেট না হলে বারংবার চেষ্টা করতে হবে। কিন্তু এই পদ্ধতিতে রেশন দিতে গিয়ে ডিলাররা নানান সমস্যার মুখে পড়ছেন। কখনওবা রেশন দেওয়ার গতি ধীরে হয়ে যাওয়ায় গ্রাহকদের রোষের মুখে পড়তে হচ্ছে তাদের, আবার কখনও হাতের ছাপই না মেলায় রেশন দেওয়ার পদ্ধতি বন্ধ রাখতে হচ্ছে। এরফলে বহু মানুষ নিজের প্রাপ্য রেশন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এই সমস্যা নিয়ে অবশ্য খাদ্য দপ্তরও নিরুপায়। তাদের কথায় সারা দেশেই আধার কর্তৃপক্ষের কথামতো এই প্রক্রিয়া চালু করা হবে। তাই আমাদেরও রাজ্যে এই পদ্ধতিতে রেশন দিতে হবে। এই নিয়ম না মানলে আধার কর্তৃপক্ষের জরিমানাও মুখে পড়তে হতে পারে পশ্চিমবঙ্গ খাদ্য দপ্তরকে।

এই ২০ টি অ্যাপ মোবাইলে থাকলে পড়তে হতে পারে বিপদে, এখনই দেখে নিন অ্যাপের লিস্ট

উল্লেখ্য, এর আগে আঙুলের ছাপ দিয়ে রেশন তোলার ক্ষেত্রেও বিস্তর সমস্যা দেখা গিয়েছিল। অনেক গ্রাহকের আঙুলের ছাপ না মেলায় তাদের আধার নম্বর দেখে রেশন দেওয়ার কথা জানিয়েছিল খাদ্য দপ্তরের কিছু আধিকারিক। কিন্তু এরকম শুধু আধার নম্বর দেখে রেশন দেওয়ার কোনো লিখিত নিয়ম না থাকায় এই নিয়ম অনুযায়ী রেশন দিতে গিয়ে পরে আবার খাদ্য দপ্তরেরই উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের শো কজের মুখে পড়তে হয় রেশন ডিলারদের একাংশকে। এই নিয়ে ক্ষোভের পাশাপাশি রেশন ডিলাররা জানিয়েছেন, নতুন এই প্রক্রিয়ায় গ্রাহকদের সমস্যা হচ্ছে বোঝা যাচ্ছে। তবে এক্ষেত্রে আমাদের কিছুই করার নেই। তাই রেশন সামগ্রী বন্টনের জন্য নতুন এই পদ্ধতি কতোটা কার্যকরী হবে তা নিয়ে প্রশ্নই থেকে যায়।

এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ খবর পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে