Start-business-investing-only-15000-rupees-and-earn-50000-monthly

আপনি কী ভালো কোনো ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন? তাহলে এই খবরটি আপনার জন্য (New Business Idea)। আজকের যুগে বেশিরভাগ মানুষই চাকরি ছেড়ে ব্যবসার দিকে ঝুঁকেছে। নিত্যনতুন ব্যবসার মাধ্যমে বহু মানুষ প্রচুর টাকা ইনকাম করছেন। তবে ব্যবসার জন্য ইচ্ছেমতো টাকা খরচ করলে চলবে না। সুযোগ বুঝে সঠিক পথে কম টাকা বিনিয়োগ করে বেশি লাভ করা যায় এমন ধরনের ব্যবসাই শুরু করা শ্রেয়। আজকের এই প্রতিবেদনে এরকমই একটি চমকপ্রদ ব্যবসা সম্পর্কে নীচে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হলো।

আজকের আলোচিত ব্যবসা হলো মাটির জিনিসপত্র, যেমন- মাটির গ্লাস, ভাঁড়, হাঁড়ি ইত্যাদির ব্যবসা। বর্তমানে সরকারের তরফ থেকে সিঙ্গেল ইউস প্লাস্টিক নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফলে মূলত পৌরসভা এলাকাগুলোতে সরকারি আধিকারিকদের তরফে প্লাস্টিক হঠাও অভিযান চালানো হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে আগামীদিনে মাটির জিনিসের ব্যবসা যে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে তা বলাই বাহুল্য। তাই এই ব্যবসার মাধ্যমে আপনি প্রচুর পরিমান মুনাফা লাভ করতে পারেন।

BSNL এর এই সবচেয়ে কমদামী প্ল্যানটি সমন্ধে আপনি জানেন কি? মাত্র ১০০ টাকার রিচার্জে চলবে দু’মাস

• কেনো মাটির ভাড়ের ব্যবসা শুরু করবেন?
সরকার কর্তৃক প্লাষ্টিক ব্যান করায় মাটির ভাড় ও অন্যান্য মাটির জিনিসগুলোর চাহিদা যথেষ্ট বাড়বে। বিভিন্ন রকম খাবারের দোকান থেকে শুরু করে বাড়িতেও মাটির জিনিসপত্রগুলোর চাহিদা বহুগুন বাড়বে। এছাড়া গ্রামের মানুষদের মধ্যে মাটির হাঁড়ি, গ্লাস এসব জিনিসের চাহিদা বরাবরই বেশি। গরমের দিনে মাটির হাঁড়ি, গ্লাসে জল অপেক্ষাকৃত বেশিক্ষন ঠান্ডা থাকতে পারে। সেজন্য গ্রামগঞ্জে বহু মানুষ গ্রীষ্মকালে মাটির হাঁড়ি ব্যবহার করে থাকেন। এছাড়াও মাটির প্রদীপও প্রায় প্রতিমাসেই পুজোঅর্চনার ক্ষেত্রে লাগে। আবার অনেক শৌখিন রেস্টুরেন্ট, ক্যাফেতে বাঙালিয়ানার ছোঁয়া হিসেবে মাটির জিনিসপত্র ব্যবহার করা হয়। এছাড়া মাটির ভাঁড়ের এই ব্যবসা শুরু করলে সরকার থেকেও সাহায্য করা হবে। তাই প্রায় সবদিক থেকেই মাটির জিনিসের চাহিদা ধীরে ধীরে বাড়ছে। সুযোগ বুঝে এই ব্যবসা শুরু করতে পারলে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

• কীভাবে এই ব্যবসা শুরু করবেন?
এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে প্রায় ১৫,০০০ টাকার মতো বিনিয়োগ করতে হবে। মাটির গ্লাস, হাঁড়ি, ভাঁড় বানানোর জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম এই টাকার মধ্যেই হয়ে যাবে। বর্তমানে ১০০ টি মাটির চায়ের কাপের দাম পাইকারি দাম কমবেশি ৫০ টাকা। ১০০ টি তুলনামূলক বড়ো শরবত-লস্যি টাইপের মাটির গ্লাসের পাইকারি দাম কমবেশি ১৫০ টাকা। এছাড়া কারুকার্য ও নকশা খচিত মাটির জিনিসগুলোর দাম অনেক বেশি। বহু মানুষেরই এইরকম ডিজাইন করা মাটির জিনিস কেনার শখ রয়েছে। তাই সুযোগ বুঝে supply chain বড়ো করলে দিনে বহু মাটির ভাঁড়, গ্লাস, হাঁড়ি বিক্রি করা সম্ভব। বিভিন্ন জায়গায় হাটে-বাজারে এইসব সামগ্রী যথেষ্ট পরিমানে বিক্রি হয়।

এক টাকার এই নোট থাকলে পেয়ে যাবেন ৭ লক্ষ টাকা পর্যন্ত, জেনে নিন বিস্তারিত

• কীরকম সরকারি সাহায্য পাওয়া যাবে এবং সরকারি পরিষেবা পেতে কী কী করতে হবে?
মৃৎশিল্পীদের সাহায্য করার জন্য কেন্দ্র সরকারের প্রকল্প রয়েছে। এর মাধ্যমে মাটির ভাঁড়ের ব্যবসা শুরু করতে চাইলে আপনাকে মূলধন বিনিয়োগের সময়ে অর্থসাহায্যের পাশাপাশি মাটির জিনিসপত্র বানানোর জন্য অত্যাধুনিক ইলেকট্রিক চাকাও দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

এই ব্যবসা চালু করতে চাইলে আপনাকে কেন্দ্র সরকারের MSME এর অধীনে নিজের ব্যবসা অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এরফলে আপনি সরকারের কাছে আরও কিছু সুবিধা পেয়ে যাবেন।

ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কিত এইরকম আরও নানান আইডিয়া পেতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে