Start-T-Shirt-Printing-Business-at-small-investment-and-earn-millions-in-a-month

আপনি কী ভালো কোনো ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন? তাহলে এই খবরটি আপনার জন্য। বর্তমানে বেশিরভাগ মানুষই চাকরি-বাকরি ছেড়ে ব্যবসা-বাণিজ্যের দিকে ঝুঁকেছেন। আপনি সঠিক ব্যবসা শুরু করতে পারলে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা কামাতে পারবেন। এরকমই একটি ব্যবসা সম্পর্কে আজকের এই প্রতিবেদনে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হলো (New Business Idea)।

• কী এই ব্যবসা?
টি-শার্ট প্রিন্টিং বিজনেস (T-Shirt Printing Business)। সাদা বা কোনোরকম স্টাইল বা লেখা না থাকা টি-শার্টে আপনি বিভিন্নরকম ডিজাইন, লেখা, ছবি ইত্যাদি প্রিন্ট করে সেটি বাজারে ভালো দামে বিক্রি করতে পারেন। ডিজাইন প্রিন্টিং এর নাম শুনে ঘাবড়াবেন না। আজকের এই প্রযুক্তিগত যুগে বহু ডিজাইন প্রিন্টিং এর মেশিন পাওয়া যায়। সেগুলো একটা কিনেই আপনি এই বিজনেস শুরু করে দিতে পারেন।

এবার কাস্ট সার্টিফিকেট ডাউনলোড করা যাবে বাড়িতে বসে, পদ্ধতি জেনে নিন

• কেনো টি-শার্ট প্রিন্টিং এর এই ব্যবসা শুরু করবেন?
বর্তমানে বাজারে টি-শার্ট এর চাহিদা অত্যন্ত বেশি। জামা বিক্রির মার্কেট বিগত কয়েক বছরে বহুত বড়ো হয়ে গিয়েছে। ২০১৪ সালে এই ব্যবসা ১.৯২ বিলিয়ন ইউ এস ডলারের ছিল এবং ২০১৮ সালের মধ্যেই টি-শার্ট বিক্রির ব্যবসা ৩.৩৪ বিলিয়ন ইউএস ডলারে পৌঁছেছে। বিগত তিন-চার বছরে এই ব্যবসা আরও বেড়েছে এবং অনলাইননে এই জামা বিক্রির ব্যবসাও দ্বিগুন হারে বেড়েছে। ফলে এইরকম বৃদ্ধিপ্রাপ্ত মার্কেটে সুযোগ বুঝে নিজের ব্যবসা শুরু করতে পারলে আপনিও কোটি কোটি মুনাফা অর্জন করতে পারবেন। প্রথমে হাজার লাখে মাসিক ইনকাম করতে পারবেন এবং তারপরে বাজার নিয়ন্ত্রণ এবং সাপ্লাই চেন ভালো হলে এই ব্যবসায় বিরাট সাফল্য অর্জন করতে পারবেন।

• টি-শার্ট প্রিন্টিং এর এই ব্যবসা শুরু করতে কী কী লাগবে?
আপনি নিজের বাড়িতেই প্রথমে এই কাজ শুরু করতে পারেন। অনলাইন থেকে আপনি টি-শার্ট প্রিন্টিং এর মেশিন কিনে নিয়ে বাড়িতেই বিভিন্নরকম টি-শার্টে ডিজাইন বসাতে পারবেন। এজন্য টি-শার্ট প্রিন্টিং মেশিনের পাশাপাশি আপনার দরকার raw টি-শার্ট অর্থাৎ ফাঁকা এক রঙের টি-শার্ট যার ওপরে আপনি বিভিন্ন প্রিন্টিং এর কাজ করবেন। এছাড়াও টেফলন পেপার প্রয়োজন। কোনো টি-শার্টে প্রিন্টিং করতে গিয়ে যাতে ওভারহিটিং না হয়ে যায় সেইজন্য টি-শার্টটির ওপরে ডিজাইন এবং টেফলন পেপার রাখা হয়। এছাড়াও আপনার কালির দরকার। বিভিন্নরকম কালির মাধ্যমে আপনি নিত্যনতুন ডিজাইন বানাতে পারবেন। সুতরাং সবদিক থেকে ভাবলে প্রথমে এই বিজনেস শুরু করতে হলে আপনার দরকার নিম্নলিখিত জিনিসগুলো

(১) টি-শার্ট প্রিন্টিং মেশিন
(২) স্যাম্পল টি-শার্ট
(৩) প্রিন্টিং এর জন্য কালি
(৪) টেফলন শিট
(৫) সেলোটেপ (অনেকসময় টেফলন শিটকে শার্টের সাথে ভালোভাবে লাগানোর জন্য ব্যবহার করা হয়)

মেশিন, টেফলন শিট, কালি সবকিছুই আপনি অনলাইন থেকে সহজেই পেয়ে যাবেন। স্যাম্পল টি শার্টও আপনি অনলাইন থেকে পেয়ে যেতে পারেন। তবে ভালো কোয়ালিটির এবং কম দামি টি-শার্ট পেতে আপনি চেনাজানা কোনো কাপড় ব্যবসায়ীর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

এবার পশ্চিমবঙ্গের মহিলাদের মোবাইল ফোন দেবে রাজ্য সরকার, ঘোষনা করলের খোদ মুখ্যমন্ত্রী

• টি-শার্ট এর ব্যবসা শুরু করতে কত টাকা বিনিয়োগ করতে হবে?
টি-শার্ট প্রিন্টিং এর ব্যবসা শুরু করতে খুব বেশি অর্থের দরকার নেই। ১ লাখের মধ্যেই প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো কিনে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। টি-শার্ট প্রিন্টিং মেশিন আপনি অনলাইনে ১৫ থেকে ২০ হাজারের মধ্যে পেয়ে যাবেন। স্যাম্পল টি-শার্ট একটি কিনতে ৭০-৮০ টাকা লাগতে পারে। আপনার চেনাজানা লোক হলে ৫০ টাকার মধ্যেও একটি শার্ট কিনতে পারবেন। সেই শার্টটিকে প্রিন্ট করে ৪০০-৫০০ টাকায় বিক্রি করতে পারবেন। তাহলে বুঝতেই পারছেন একটি শার্ট বিক্রি করেই এতো লাভ করলে প্রতি মাসে অনেক শার্ট বিক্রি করে কী বিপুল পরিমান মুনাফা অর্জন করতে পারবেন। এছাড়া টেফলন শিট ও প্রিন্টিং এর জন্য কালিও আপনি অনলাইন থেকে কম দামে পেয়ে যাবেন।

পরবর্তীকালে যদি আপনার ব্যবসা ভালো চলে তাহলে আরও উন্নত কোয়ালিটির মাল্টি প্রিন্টিং মেশিন কিনতে পারেন, যার মূল্য কমবেশি ৫০,০০০ টাকার মধ্যে। এইভাবে ব্যবসার লাভের ওপর ভিত্তি করে আপনি পরবর্তীকালে নিজের এই টি-শার্ট প্রিন্টিং এর ব্যবসাকে আরও বড়ো করে তুলতে পারবেন।

আধার কার্ডে মোবাইল নাম্বার লিঙ্ক বা যে কোনো কাজ এবার হবে ঘরে বসেই, রাজ্য সরকারের নতুন উদ্যোগ

• কীভাবে টি-শার্ট প্রিন্টিং এর এই ব্যবসা শুরু করবেন?
আপনি এই ব্যবসার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে বাড়িতেই টি-শার্ট ডিজাইন প্রিন্টিং করতে পারবেন। এবার প্রথমদিকে আপনার নিজের এলাকার বিভিন্ন শপিং মল এবং স্থানীয় কাপড়ের দোকানের সঙ্গে ব্যবসা করে তাদের পাইকারি রেটে বিক্রি করতে পারেন। আপনার প্রিন্টিং টি-শার্ট গুলোর কোয়ালিটি ও ডিজাইন ভালো হলে চাহিদাও আপনা-আপনি বাড়বে। এইভাবে ধীরে ধীরে ছোটো বাজার থেকে শুরু করে বড়ো বাজারে নিজের প্রিন্ট করা টি-শার্ট গুলো বিক্রি করতে পারবেন। সবথেকে ভালো হয় নিজের নামে কোম্পানি রেজিস্ট্রেশন করলে। তাহলে অনলাইনেই বিভিন্ন প্লাটফর্মে নিজের প্রিন্ট করা টি-শার্টগুলো ভালো দামে বিক্রি করে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কিত এইরকম আরও নানান নিত্যনতুন আইডিয়া পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে

ছবি ক্রেডিটঃ- bastratantra.com