Start-this-business-without-any-investment-and-earn-above-1-lakh-per-month

বর্তমানে তরুণ-তরুণীরা পেশাগত চাকরির তুলনায় ব্যবসার প্রতি বেশি ঝুঁকছে। এর কারণ হিসেবে বলা যেতে পারে ভালো ইনকামের ব্যাপারটি। চাকরিতে প্রতি মাসে ফিক্সড স্যালারি পাওয়ার চেয়ে ভালো কোনো ব্যবসা করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করাই বেশি শ্রেয় বলে বেশিরভাগ মানুষ মনে করছে। তবে ব্যবসা করতে চাইলেই তাড়াহুড়ো করে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া ঠিক নয়। যেই ব্যবসার সুযোগ ও উপার্জন বেশি, বিনিয়োগ কম সেগুলোর মধ্যেই কোনো ব্যবসা শুরু করা উচিত। আজকের প্রতিবেদনে এরকমই একটি ব্যবসা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো যেখানে আপনি কোনোরকম বিনিয়োগ না করেই প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে নিই এই আকর্ষণীয় বিজনেস আইডিয়া সম্পর্কে।

• কী এই বিজনেস আইডিয়া (New Business Idea)?
অনলাইন শিক্ষকতা। আপনি অনলাইনে কোনো বিষয় সম্পর্কে পড়িয়ে ভালো ইনকাম করতে পারেন।
অনলাইন শিক্ষকতা বিভিন্ন রকম হয়। যেমন– আপনি জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপগুলোতে নিজের চ্যানেল খুলে কোনো বিষয় সম্পর্কে আপনার বোঝানো ভিডিও আপলোড করতে পারেন। সেই ভিডিও শিক্ষার্থীরা দেখলে এবং ভিউয়ার্স এর সংখ্যা বেশি হলে উক্ত ভিডিও থেকে আপনি প্রচুর টাকা কামাতে পারবেন। যেমন– আপনি ইউটিউবে কোনো এডুকেশনাল চ্যানেল খুলে কোনো সাবজেক্টের ওপর ভিডিও আপলোড করতে পারেন। আপনি যেই বিষয়ে পারদর্শী সেই বিষয়েই ইউটিউব ভিডিও বানালে তা ভালো হয়। এছাড়া আপনি বিভিন্ন এডুকেশনাল অ্যাপগুলোতেও শিক্ষকতা করতে পারেন। এরজন্য সেইসব জনপ্রিয় অ্যাপগুলোর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে আবেদন করতে পারেন। একবার সিলেক্ট হয়ে গেলে সেখান থেকেও মাসে মোটা টাকা কামাতে পারবেন। অথবা আপনার নিজের ইউটিউব চ্যানেল ভালো জনপ্রিয় হলে আপনি paid সাবস্ক্রিপশনের ব্যবস্থাও করতে পারেন। তাহলে শিক্ষার্থীরা নির্দিষ্ট পরিমান সাবস্ক্রিপশন ফি দিয়ে আপনার ভিডিওগুলো দেখতে পারবে। চেষ্টা করবেন সাবস্ক্রিপশন ফি তুলনামূলক কম রাখার, তাহলে বেশি স্টুডেন্ট আপনার সাবস্ক্রিপশন নিতে পারবে যার ফলে নেট লাভ ভালোই হবে।

শুরু হলো স্বামী বিবেকানন্দ স্কলারশিপে টাকা দেওয়ার প্রক্রিয়া, এখনও টাকা পাননি? জেনে নিন কী করবেন

• অনলাইন শিক্ষকতা শুরু করতে কী কী প্রয়োজন এবং কীভাবে শুরু করবেন এই ব্যবসা?
প্রথমে আপনি নিজের মোবাইল থেকেও ভিডিও রেকর্ড করতে পারেন। খুব বেশি হলে একটি মোবাইল স্ট্যান্ডের প্রয়োজন হতে পারে। আপনি খাতায় লিখে অথবা হোয়াইটবোর্ড বা ব্ল্যাকবোর্ডে লিখে টপিকটি সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে পারেন। যদি দেখেন আপনার মোবাইলে বানানো ভিডিওগুলো ভালো দর্শক দেখছে তাহলে আপনি ক্যামেরা কিনেও ভিডিও রেকর্ড করতে পারেন। এই ব্যবসায় যেরকম ইনকাম করছেন সেই হিসেবে নিজের ব্যবসাটিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। খুব বেশি লাভ হলে আপনি বড়ো কম্পিউটারাইজড স্ক্রিন, ভালো কোয়ালিটির ক্যামেরা, এমনকি নিজের বানানো অ্যাপের মাধ্যমেও ক্লাস করাতে পারেন। সবটাই আপনার ব্যবসার গতিপ্রকৃতির ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নেবেন।

উচ্চমাধ্যমিকের PPR কিংবা PPS এর রেজাল্টের No Change, Revised স্ট্যাটাসগুলির অর্থ কি

• মাসে কতো টাকা ইনকাম করতে পারবেন?
টাকার পরিমান আপনার চ্যানেলের গ্রোথের ওপর নির্ভর করবে। যদি আপনার ইউটিউব ভিডিওগুলোতে মিনিমাম সাবস্ক্রাইবার ও দর্শক থাকে তাহলে মানিটাইজেশন অন হয়ে যাবে। সেখান থেকে আপনি ভালো পরিমান টাকা কামাতে পারবেন। একটা ভালো ইউটিউব এডুকেশনাল চ্যানেল খুলে মাসে ২০,০০০ টাকা থেকে ৩০,০০০ টাকা পর্যন্ত কামানো যায়। যদি আপনার paid সাবস্ক্রিপশনের ব্যাপার থাকে তাহলেও প্রতি মাসে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এছাড়া কোনো এডুকেশনাল অ্যাপে শিক্ষকতার চাকরি করলে আপনি মিনিমাম ৪০,০০০ টাকা স্যালারি পেতে পারেন। আপনার শিক্ষকতা সেই অ্যাপটির বেশি পরিমান শিক্ষার্থীদের পছন্দ হলে আপনার স্যালারি অটোমেটিক অ্যাপ কর্তৃপক্ষই বাড়িয়ে দেবে। এইভাবে অনলাইনে শিক্ষকতা করে প্রতি মাসে প্রচুর টাকা কামাতে পারবেন।

ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কিত এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ খবর পেতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে