The-farmers-are-going-to-be-given-the-money-of-six-schemes

আপনি কী পশ্চিমবঙ্গে বসবাসকারী একজন কৃষক? তাহলে এই প্রতিবেদনটি আপনার জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। চলতি মাসে কৃষক বন্ধু প্রকল্পের পাশাপাশি আরও ৫ টি কৃষি সংক্রান্ত প্রকল্পের টাকা দেওয়া হবে (West Bengal Farmers Schemes)। গত ২৭ শে জুন, ২০২২ তারিখে পশ্চিমবঙ্গের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বর্ধমানের এক সরকারি অনুষ্ঠান থেকে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের খারিফ মরশুমের টাকা দেওয়া শুরু করেন।

গত এক সপ্তাহে বহু কৃষকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের ২,০০০ থেকে সর্বোচ্চ ৫,০০০ টাকা পর্যন্ত ঢুকেছে। যাদের অ্যাকাউন্টে এখনও টাকা ঢোকেনি তারা চিন্তা করবেন না। শীঘ্রই আপনার অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকে যাবে। নবান্ন সূত্রে খবর, এবার প্রায় ৮৯ লক্ষ কৃষককে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের কিস্তির টাকা দেওয়া হবে। এরই পাশাপাশি আরও ৫ টি কৃষিসংক্রান্ত প্রকল্পের টাকা দেওয়া হবে। চলুন জেনে নেওয়া যাক, সেই প্রকল্পগুলো কী কী এবং কতো টাকা করে আপনাদের দেওয়া হবে।

BSNL এর এই সবচেয়ে কমদামী প্ল্যানটি সমন্ধে আপনি জানেন কি? মাত্র ১০০ টাকার রিচার্জে চলবে দু’মাস

• কোন ৬ টি কৃষি সংক্রান্ত প্রকল্পের টাকা দেওয়া হবে (West Bengal Farmers Schemes)?
(১) কৃষক বন্ধু (Krishak Bondhu):- কৃষক বন্ধু পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার কর্তৃক চালু করা একটি প্রকল্প, যার মাধ্যমে কৃষকদের ৪,০০০ টাকা থেকে ১০,০০০ টাকা অবধি দেওয়া হয়। দুটি কিস্তিতে এই টাকা দেওয়া হয়। খারিফ মরশুমের কিস্তির টাকাটা জুন মাসের শেষ থেকে জুলাই মাসের মধ্যে দেওয়া হবে।

(২) কৃষক বন্ধু (মৃত্যুজনিত সহায়তা):-
যদি রাজ্যের ১৮-৬০ বছর বয়সের মধ্যে থাকা কোনো কৃষক কৃষিজনিত কারণে, যেমন:- ফসল আশানুরূপ না হওয়া, লাভ না হওয়া ইত্যাদি নানা কারণে আত্মহত্যা করলে তার পরিবারকে আর্থিক সহায়তা হিসেবে ২ লক্ষ টাকা দেওয়া হয়। এবছরে যদি কোনো কৃষকের এইভাবে দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যু ঘটে থাকে, তাহলে তার পরিবারকে ২,০০,০০০ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।

গরীর ছেলে-মেয়েদের সরকার দেবে মাসে ৫ হাজার টাকা, চালু হলো নতুন প্রকল্প

(৩) শস্যবীমা (Bangla Shasya Bima):-
যদি কোনোরকম প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা অন্য কোনো কারণে আপনার কৃষিজমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে, তাহলে আপনি বাংলা শস্যবীমা প্রকল্পের মাধ্যমে ক্ষতিপূরণ পেয়ে যেতে পারেন। ক্ষতিপূরণের টাকার পরিমান আপনার ক্ষতিগ্রস্থ জমির পরিমানের ওপর নির্ভর করবে। এই প্রকল্পে আবেদন করে থাকলে সেই টাকাও আপনি এই মাসের মধ্যে পেয়ে যেতে পারেন।

(৪) বাংলা কৃষিসেচ প্রকল্প (Krishi Sech Yojana):-
এই প্রকল্পের মাধ্যমে সরকারের তরফে কৃষকদের জমির সেচ সংক্রান্ত কাজে আর্থিক সাহায্য করা হয়। সেচের জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কিনতে আর্থিক সাহায্য করা হয়। এই প্রকল্পে যারা আবেদন করেছেন তারা জুলাই মাসের মধ্যেই ২০,০০০ থেকে ৭০,০০০ টাকার মধ্যে পেয়ে যেতে পারেন। টাকার পরিমান আপনার আবেদন ও সেচ সংক্রান্ত কাজের খরচের ওপর নির্ভর করবে।

(৫) কৃষি যন্ত্রায়ন:-
এই প্রকল্পের চাষাবাদের জন্য যন্ত্রপাতি কেনার বিষয়ে কৃষকদের আর্থিক সাহায্য করা হয়। আপনি প্রথমে আসলে দামে কৃষি যন্ত্রপাতি গুলো কিনে নিতে পারেন তারপরে এই প্রকল্পে যদি আবেদন করে থাকেন তাহলে যন্ত্রপাতি কেনার অর্ধেক টাকা সরাসরি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ভর্তুকি হিসেবে দিয়ে দেওয়া হয়। তাই এই প্রকল্পে আবেদন করলে জুলাই মাসের মধ্যে টাকা পেয়ে যেতে পারেন।

আপনার কাছে এক টাকার এই নোটটি থাকলে আপনি পেয়ে যাবেন ৭ লক্ষ টাকা পর্যন্ত, জেনে নিন বিস্তারিত

(৬) কৃষি পরিকাঠামোগত অনুদান:-
কৃষিক্ষেত্রে পরিকাঠামোগত দিক দিয়ে সাহায্য করার জন্য কৃষকদের অর্থ সাহায্য করা হয়। এই প্রকল্পে সর্বোচ্চ ২ লক্ষ টাকা অবধি আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়। যারা এই প্রকল্পে আবেদন করেছেন তারা জুলাই মাসের মধ্যে টাকা পেয়ে যেতে পারেন।

সরকারি প্রকল্প সম্পর্কিত এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ খবর পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে