This-scheme-of-Post-Office-gives-the-opportunity-to-earn-a-good-quantity-of-money-in-every-month-Know-how-to-apply

আপনি কি বাড়িতে বসে নিয়মিত আয়ের কথা ভাবছেন? তবে এই খবরটি আপনার জন্য। যারা চাকরি কিংবা ব্যবসা কিংবা অন্য কোনো পেশার পাশাপাশি বাড়িতে বসেই প্রতি মাসে অতিরিক্ত টাকা নিয়মিত আয়ের কথা ভাবছেন তাদের জন্য রয়েছে দারুণ এক সুখবর। ভারতীয় ডাক বিভাগের তরফে তাদের গ্রাহকদের জন্য এমন একটি স্কিম নিয়ে আসা হয়েছে, যার জেরে গ্রাহকরা প্রতিমাসে নিয়মিত আয় করতে পারবেন; তাও আবার বাড়িতে বসেই। পোস্ট অফিসের এই স্কিমটি মাসিক আয় স্কিম (Post Office MIS) নামে পরিচিত। ভারতের সমস্ত নাগরিকরাই পোস্ট অফিসের এই স্কিমটির সুবিধা নিতে পারবেন। আর আজ আমরা আলোচনা করতে চলেছি, আপনারা এই স্কিমটিতে কি কি সুবিধা পাবেন, কতো টাকা থেকে বিনিয়োগ শুরু করতে পারবেন, কারা এই স্কিমের সুবিধা পেতে চলেছে ইত্যাদি বিষয়গুলি (Post Office Scheme)।

• চলুন তবে পোস্ট অফিসের মাসিক আয় স্কিমটি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক:-
আপনি যদি নিশ্চিত রিটার্নসহ বিভিন্ন সুবিধা পেতে চান তবে এই পোস্ট অফিসের স্কিমে বিনিয়োগ আপনার জন্য একদম পারফেক্ট। তবে এই স্কিমটিতে একেবারে একটি মোটা অংকের টাকা জমা করতে হবে। পোস্ট অফিসের মাসিক আয় স্কিমে ৬.৬ শতাংশ হারে সুদ পাবেন বিনিয়োগকারীরা। ১৮ বছর বয়সী হলেই নাগরিকরা এই স্কিমের সুবিধা নিতে পারবেন। এই স্কীমটির মেয়াদ মাত্র ৫ বছর, যদিও আরও ৫-৫ বছরের জন্য এই স্কিমের মেয়াদ বৃদ্ধি করা যেতে পারে। পোস্ট অফিসের মাসিক আয় স্কিমটিতে অ্যাকাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে প্রয়োজন হবে মাত্র ১০০০ টাকা। পোস্ট অফিস MIS-এ একক এবং যৌথ উভয় ধরনের অ্যাকাউন্টই খুলতে পারবেন বিনিয়োগকারীরা। একজন বিনিয়োগকারী সর্বোচ্চ ৩ টি অ্যাকাউন্টের অধিকারী হতে পারবেন। পোস্ট অফিসের MIS এর আওতায় বিনিয়োগকারীরা একক অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে সর্বাধিক ৪.৫৯ লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে পারবেন এবং যৌথ অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে সর্বাধিক ৯ লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে পারবেন একজন বিনিয়োগকারী।

অন্যান্য কোম্পানিগুলোকে টেক্কা দিতে BSNL নিয়ে এলো ১৯ টাকার প্ল্যান, চলবে ১ মাস

• সর্বাধিক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আয়:-
একজন বিনিয়োগকারী একটি যৌথ অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে পোস্ট অফিসের মাসিক আয় স্কিমে সর্বাধিক ৯ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করতে পারবেন। পোস্ট অফিসের এই স্কিমে বার্ষিক ৬.৬ শতাংশ হারে সুদ প্রদান করা হবে বিনিয়োগকারীদের। এই স্কিমের মেয়াদ ৫ বছর হওয়ায়, ৫ম বছরের পর থেকে প্রতি মাসে রয়েছে নিশ্চিত আয়ের সুযোগ। হিসেব অনুসারে, একটি যৌথ অ্যাকাউন্টে সর্বোচ্চ বিনিয়োগ অর্থাৎ ৯ লক্ষ টাকা জমা করলে ৫ বছর পর বছরে ৬.৬ শতাংশ হারে সুদ পাওয়া গেলে অর্থের পরিমাণ দাঁড়ায় ৫৯৪০০ টাকা। ৫৯৪০০ টাকা ১২ মাসের মধ্যে ভাগ করলে প্রতি মাসে পাওয়া যাবে ৪৯৫০ টাকা করে। অর্থাৎ প্রতিমাসে ৪৯৫০ টাকা আয়ের সুযোগ রয়েছে পোস্ট অফিসের এই স্কিমে। একই রকম ভাবে এটি একক অ্যাকাউন্টে সর্বোচ্চ বিনিয়োগ অর্থাৎ ৪.৫৯ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করলে ৫ বছর পর থেকে বিনিয়োগকারীরা প্রতি মাসে সুদ হিসেবে ২৪৭৫ টাকা পাবেন।

• মেয়াদ পূরণের পূর্বে টাকা তোলার ক্ষেত্রে জরিমানা:-
পোস্ট অফিসের মাসিক আয় স্কিমে কয়েকটি শর্ত রয়েছে। প্রথম শর্ত হলো এই স্কিমের আওতায় অ্যাকাউন্ট খোলার পর এক বছরের মধ্যে বিনিয়োগ করা টাকা তোলা বা অন্য রাশি জমা করা যাবেনা। এর পাশাপাশি, মেয়াদ পূরণের পূর্বে টাকা তুলে নিলে দিতে হবে জরিমানা। মেয়াদপূর্তির ৩ থেকে ৫ বছর টাকা তুলে নেওয়া হলে ১% জরিমানা কেটে নেওয়ার পরে পোস্ট অফিসের তরফে বাকি অর্থ বিনিয়োগকারীকে ফেরত দেওয়া হবে। তবে মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরে টাকা তুলে নিলে পাওয়া যাবে এই স্কিমের সমস্তরকম সুবিধা।

এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের পেজটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের আইকনে ক্লিক করে আজই যুক্ত হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে