Find-out-when-the-state-government-employees-will-get-their-Dearness-Allowances

রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের ডিএ (Dearness Allowances) মামলা নিয়ে বিতর্ক যেনো থামতেই চাইছে না। সামনেই বাঙালির প্রাণের উৎসব, দুর্গোৎসব। যদিও দুর্গোৎসব আসতে এখনও প্রায় এক মাসেরও বেশি সময় বাকি, কিন্তু ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর তরফে রাজ্য সরকারি কর্মচারী এবং স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ছুটি ঘোষণা করা হয়ে গেছে। একদিকে উৎসবের মরশুম তার মধ্যে ছুটির ঘোষণা কিন্তু অন্যদিকে রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা এখনও পাননি তাদের বকেয়া ডিএ। বিগত দু’বছর ধরে করোনার একের পর এক নতুন ভ্যারিয়েন্টের কারণে লকডাউনের দরুণ যে অর্থনৈতিক মন্দার সৃষ্টি হয়েছে তাতে যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন সাধারণ মানুষ।

অন্যদিকে রাশিয়া, ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে ক্রমাগত বেড়ে চলেছে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম। আর সমস্ত দিক সামাল দিয়ে উঠতে সরকারি কর্মচারীরা তাদের বেতন এবং ডিএ এর ওপর যথেষ্টভাবে নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন। কিন্তু রাজ্য সরকার ১৯ শে আগস্ট এর মধ্যে ডিএ মিটিয়ে দেবে জানালেও এখনও পর্যন্ত সরকারি কর্মচারীরা তাদের বকেয়া ডিএ পাননি। ফলত রাজ্য সরকার এবং রাজ্য সরকারি কর্মচারী সংগঠনের মতবিরোধ আদালত পর্যন্ত পৌঁছেছে। আর তাতেই রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে ডিএ সংক্রান্ত মামলা নিয়ে নানা প্রকার জল্পনার সৃষ্টি হচ্ছে। আর তাই আজ আমরা আপনাদের জন্য এই পোস্টে আলোচনা করতে চলেছি কবে রাজ্য সরকারের কর্মচারীরা তাদের বকেয়া ডিএ পেতে চলেছেন, এ বিষয়ে আদালত কি জানিয়েছে ইত্যাদি ডিএ মামলা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

ডিএ সংক্রান্ত মামলার জেরে আদালতের পক্ষ থেকে রাজ্য সরকারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিলো যাতে রাজ্য সরকারের তরফে ১৯ শে আগস্টের মধ্যে সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বকেয়া ডিএ মিটিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু সেই সময়সীমা পেরোনোর পূর্বেই রাজ্য সরকারের তরফ রিভিউ পিটিশন দাখিল করা হয়েছিল। কিন্তু গন্ডগোল অন্য জায়গায়। এই রিভিউ পিটিশন দাখিল করার নোটিশ সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারী সংগঠনকে পাঠানো হয়নি, যার জেরে মতবিরোধ চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে। এই রিভিউ পিটিশনের শুনানি হতে চলেছে ২৯ শে আগস্ট বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডন এবং বিচারপতি শম্পা দত্তের ডিভিশন বেঞ্চে। কিন্তু আদালতের পক্ষ থেকে প্রকাশিত তথ্য অনুসারে ২৯ শে আগস্ট,২০২২ থেকে ২ রা সেপ্টেম্বর,২০২২ পর্যন্ত বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডন এবং বিচারপতি শম্পা দত্তের ডিভিশন বেঞ্চে কোনরূপ কাজ না হওয়ার সম্ভাবনা যথেষ্ট বেশি। অর্থাৎ সরকারি কর্মীদের মহার্ঘ ভাতা কিংবা ডিএ এখনও আগের মতই তিমিরে রয়েছে।

প্রত্যেক স্কুল শিক্ষক-শিক্ষিকাকে পাঠানো হচ্ছে নোটিশ, ১৫ দিনের মধ্যে দিতে হবে উত্তর

অন্যদিকে, রাজ্য সরকারের তরফে যে রিভিউ পিটিশন দাখিল করা হয়েছিলো তার নোটিশ সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারী সংগঠনকে পাঠানো হয়নি। ফলত রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের ইউনিটি ফোরামের তরফে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে দায়ের করা হয়েছিলো আদালত অবমাননার মামলা। গত বৃহস্পতিবার, ২৫ শে আগস্ট এই মামলার শুনানির তারিখ থাকলেও কোনোরূপ শুনানি হয়নি, এমনকি পরবর্তী শুনানি কবে তাও জানানো হয়নি। যার জেরে যথেষ্ট ক্ষুব্ধ রাজ্য সরকারী কর্মীরা।

এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের পেজটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের আইকনে ক্লিক করে আজই যুক্ত হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে