If-you-want-to-do-business-the-Government-will-give-money-Apply-in-this-method

আপনি কি ব্যবসা করতে চান? আপনি কি ব্যবসায় মূলধনের জোগান নিয়ে চিন্তিত? তবে এই খবরটি আপনার জন্য। বেকার যুবক-যুবতী, যারা নিজস্ব ব্যবসা শুরু করতে চান তাদের জন্য রয়েছে দারুণ এক সুখবর। করোনা মহামারীর একের পর এক ঢেউয়ের জেরে প্রায় দু’বছর ধরে সমগ্র ভারতজুড়ে লকডাউন ছিল। আর এই মহামারীর রেশ কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই রাশিয়া এবং ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে এক টালমাটাল অর্থনৈতিক পরিস্থিতির সমগ্র বিশ্ববাসী। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলির মতো ভারতের অর্থনৈতিক পরিস্থিতিও মোটেই স্থিতিশীল নয়। আর এই অর্থনৈতিক পরিস্থিতির কারণে প্রভাবিত হচ্ছে সরকারি কিংবা বেসরকারি চাকরির কর্মসংস্থান। ফলত, অনেক যুবক-যুবতীই চাকরির আশা ছেড়ে মন দিয়েছেন নিজস্ব ব্যবসা শুরু করার দিকে (Mudra Yojana)।

ব্যবসা শুরু করার ক্ষেত্রে বেকার যুবক যুবতীদের মূলত যে সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় তা হলো মূলধনের জোগান। তবে অন্যান্য ক্ষেত্রের মতোই এক্ষেত্রেও বেকার যুবক যুবতীদের নিজস্ব ব্যবসা শুরু করার জন্য সহায় হয়ে দাঁড়িয়েছে ভারতের কেন্দ্র সরকার। বিপুল ভোটে জয়লাভের পরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্যোগে কেন্দ্র সরকারের তরফে ভারতের সাধারণ জনগণের জন্য অনেকগুলি জনকল্যাণমূলক প্রকল্প চালু করা হয়েছে। নারী, শিশু থেকে শুরু করে কৃষক পর্যন্ত দেশের সমস্ত জনসাধারণের জন্যই বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প কার্যকরী করা হয়েছে। আর এবার সেই প্রকল্পগুলির তালিকায় আরও একটি নাম যুক্ত হয়েছে সেটি হলো প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনা। এই যোজনার আওতায় বেকার যুবক, যুবতীদের তাদের ব্যবসা শুরু করার জন্য ঋণ প্রদান করা হয়ে থাকে, তাও আবার কোনোরূপ গ্যারান্টার ছাড়াই। আর আজ আমরা আলোচনা করতে চলেছি, কারা এই যোজনার মারফত ঋণ নিতে পারবেন, কতো টাকা পর্যন্ত ঋণ নেওয়া যাবে, এই যোজনার জন্য কিভাবে আবেদন করবেন ইত্যাদি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি।

• চলুন তবে এই যোজনাটি সম্পর্কে সবিস্তারে জেনে নেওয়া যাক:-
দেশের বর্তমান পরিস্থিতিকে নজরে রেখে ভারতের কেন্দ্র সরকারের তরফে প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনা কার্যকরী করা হয়েছে। দেশের যুবসমাজকে ব্যবসা শুরু করার জন্য ঋণ প্রদানের মাধ্যমে মূলধনর জোগান দেওয়াই এই যোজনার উদ্দেশ্য। প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনার অধীনে ভারতের যুবক যুবতীদের সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হয়ে থাকে। পরবর্তীতে তাদের নির্দিষ্ট সুদ সমেত নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে এই ঋণের অর্থ শোধ করতে হবে। তবে এই যোজনার আওতায় ঋণ নেওয়ার জন্য কোনোরূপ গ্যারান্টারের প্রয়োজন নেই।

আবেদন করুন লেবার কার্ডের জন্য এবং পেয়ে যান সর্বোচ্চ ১ লক্ষ টাকা

তবে বিভিন্ন মানুষের বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা হওয়ায় সকলের যে একই পরিমাণ ঋণের প্রয়োজন হবে তার কোনো অর্থ নেই। ফলত ঋণের পরিমাণ অনুসারে এই যোজনাকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে, যথা:- শিশু ঋণ, কিশোর ঋণ, তরুণ ঋণ।
১. শিশু ঋণ:- শিশু ঋণের আওতায় একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ ৫০,০০০ টাকা ঋণ নিতে পারবেন। ঋণ শোধের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫ বছর সময় পাওয়া যাবে। শিশু ঋণের ক্ষেত্রে বছরে সুদের হার ১০ শতাংশ থেকে ১২শতাংশ।

২. কিশোর ঋণ:- এই কিশোর ঋণের আওতায় নতুন ব্যবসা শুরু করার ক্ষেত্রে একজন ব্যক্তি ৫০,০০০ থেকে সর্বোচ্চ ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ পেতে পারেন। সুদের হার ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের ওপর নির্ভরশীল। ঋণ পরিশোধের সময়কাল ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারণ করা হবে। কোনো ব্যবসায়ী ঋণ পাবেন কিনা তা নির্ভর করছে ওই ব্যক্তির ক্রেডিট রেকর্ড এবং ব্যবসায়িক পরিকল্পনার ওপরে।

৩. তরুণ ঋণ:- প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনার অধীনে তরুণ ঋণের পরিমাণ সর্বাধিক। যেসকল ব্যক্তিদের নিজস্ব ব্যবসা রয়েছে এবং বর্তমানে সম্প্রসারণ চাইছেন সেসকল ব্যক্তিরা এই ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে সুদের হার এবং পরিশোধের সময়কাল ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারণ করা হবে। এক্ষেত্রে একজন ব্যবসায়ী ৫ লক্ষ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারবেন।

• মুদ্রা যোজনার সুবিধা:-
১. এই যোজনার অধীনে ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে গ্যারান্টার আবশ্যিক নয়।
২. সর্বোচ্চ ৫০,০০০ থেকে সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ পেতে পারেন একজন আবেদনকারী।
৩. মুদ্রা যোজনার অধীনে ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে কোনরূপ প্রসেসিং ফি লাগবে না।

বিদ্যুতের বিল কমে যাবে অর্ধেক, ইলেকট্রিক মিটারের সাথে আজই যুক্ত করুন স্বল্পমূল্যের এই যন্ত্র

• কারা এই যোজনায় আবেদনের যোগ্য:-
১. যেসকল ব্যাক্তিরা বাণিজ্যিক যানবাহন, যেমন:- ট্র্যাক্টর, অটো রিকশা, ট্যাক্সি, ট্রলি, পণ্য পরিবহনের যানবাহন, তিন চাকার গাড়ি, রিকশা ইত্যাদি কিনতে চান তারা এই যোজনার অধীনে ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন।
২. সেসকল নাগরিক সেলুন, জিম, সেলাইয়ের দোকান, ওষুধের দোকান, জিনিসপত্র মেরামতির দোকান এবং ড্রাই ক্লিনার্স, ফটোকপি দোকান ইত্যাদির ব্যবসা শুরু করতে চান তারা প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনার অধীনে ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন।
৩. অন্যদিকে যারা কৃষি বিপণন কেন্দ্র, খাদ্য ও কৃষি প্রক্রিয়াকরণ, পোলট্রি, মাছ চাষ, মৌমাছি পালন, পশুসম্পদ পালন, কৃষি-শিল্প, ডেয়ারি ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা শুরু করতে চান তারাও এই যোজনার অধীনে ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন।
৪. যে সকল ব্যক্তিরা এই সমস্ত ব্যবসাগুলি শুরু করতে চাইছেন ঋণের জন্য আবেদনের ক্ষেত্রে তাদের বয়স অবশ্যই ১৮ বছর হতে হবে।
৫. এর পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনার অধীনে ঋণের জন্য আবেদনের ক্ষেত্রে আবেদনকারীদের অবশ্যই সঠিক ব্যবসায়িক পরিকল্পনা থাকতে হবে।

আবেদনের প্রয়োজনীয় নথি এবং সঠিক ব্যবসায়িক পরিকল্পনা সহ যদি কোনো আবেদনকারী সঠিকভাবে ঋণের জন্য আবেদন করে থাকেন এবং ব্যাংক কিংবা কোনো আর্থিক সংস্থার পক্ষ থেকে ওই ব্যবসায়িক পরিকল্পনা মনোনীত করা হয়, তবে আবেদনের ১০ দিনের মধ্যে ঋণ পেয়ে যাবেন।

• আবেদনের পদ্ধতি:-
যেসকল ব্যাক্তিরা প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনার অধীনে ঋণের জন্য আবেদন করতে চান তারা উদয় মিত্র পোর্টালের https://portal.udyamimitra.in/Login মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। এছাড়াও কোনরূপ সাহায্যের ক্ষেত্রে ১৮০০ ১৮০ ১১১১ টোল ফ্রি নম্বরে যোগাযোগ করতে পারবেন। তবে এই যোজনার আওতায় ঋণ নেওয়া যাবে কেবলমাত্র ব্যাংক কিংবা যেকোন ঋণ প্রদানকারী সংস্থার মাধ্যমে। যে সকল ব্যাংকগুলি থেকে আপনারা ঋণ পেতে পারেন, সেগুলি হলো:-
১. পাবলিক সেক্টর ব্যাংক ।
২. বেসরকারি সেক্টর ব্যাংক।
৩. গ্রামীণ ব্যাংক।
৪. রাজ্য পরিচালিত সমবায় ব্যাঙ্ক।
৫. ব্যাংক ছাড়া অন্য যেকোনো আর্থিক সংস্থা।

• আবেদনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নথি:-
১. আবেদনকারীর আধার কার্ড।
২. আবেদনকারীর প্যান কার্ড।
৩. স্থায়ী ঠিকানা, ব্যবসার ঠিকানা এবং মালিকানার প্রমাণ।
৪. তিন বছরের ব্যালেন্স শীট।
৫. যে সকল ব্যক্তিদের নিজস্ব ব্যবসায় রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্ন এবং স্ব-মূল্যায়ন রিটার্ন।
৬. আবেদনকারীর পাসপোর্ট সাইজের ছবি।

এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের পেজটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের আইকনে ক্লিক করে আজই যুক্ত হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে