Start-This-Business-and-earn-minimum-one-lakh-per-month

আপনি কী ভালো কোনো ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন? তাহলে এই খবরটি আপনার অনেক কাজে লাগবে। বর্তমানে অধিকাংশ যুবসমাজই ব্যবসার প্রতি আকৃষ্ট হয়েছেন। সকলেই এখন চাকরি করার চেয়ে ব্যবসা শুরু করাকেই শ্রেয় বলে মনে করছে। আসলে মূল্যবৃদ্ধির এই বাজারে টিকে থাকতে গেলে ভালোরকম অর্থ প্রয়োজন, যার জন্য ব্যবসা-বাণিজ্য শুরু করাই সবথেকে ভালো উপায়। তবে ব্যবসা শুরু করতে চাইলেই কিন্তু তাড়াহুড়ো করে কোনো কিছু শুরু করে দেওয়া উচিত নয়। কোনো ব্যবসা শুরু করার আগে তার বাজার দর, গ্রাহকের চাহিদা, ইনকাম, বিনিয়োগের পরিমান প্রভৃতি দিকগুলো ভালো করে পর্যবেক্ষণ করা উচিত। তারপরেই যেই ব্যবসা আপনার জন্য উত্তম মনে হবে সেটি শুরু করতে পারেন। আজকে এমন একটি ব্যবসা সম্পর্কে আপনাদের সাথে আলোচনা করবো, যা আপনি সহজেই শুরু করতে পারেন। এই ব্যবসার বাজার দর বেশি থাকায় মাস গেলে মোটা টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তাহলে চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক, আজকের বিজনেস আইডিয়াটি সম্পর্কে (New Business Idea)।

• কী এই ব্যবসা?
আজকের আলোচিত ব্যবসা হলো কোচিং সেন্টারের ব্যবসা। আপনি একটি কোচিং সেন্টার খুলে ভালোরকম টাকা কামাতে পারবেন।

অল্প পুঁজিতে শুরু করুন এই ব্যবসা, মাসে ইনকাম করতে পারবেন লাখ টাকা

• কেনো শুরু করবেন কোচিং সেন্টারের ব্যবসা?
আজকাল অনেক ছাত্রছাত্রী কোচিং সেন্টারে গিয়ে পড়াশোনা করে থাকেন। ছোটো ক্লাসের পাশাপাশি বেশিরভাগ সময় দ্বাদশ শ্রেণীর ইঞ্জিনিয়ারিং ও মেডিক্যাল পরীক্ষার জন্য বহু ছাত্রছাত্রীই কোচিং সেন্টারের দ্বারস্থ হন। পাশাপাশি বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষা যেমন:- SSC, CHSL, CGL, ব্যাঙ্কিং, রেলওয়ে, ক্লার্কশিপ, WBCS প্রভৃতি নানান পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য বহু চাকরিপ্রার্থী কোচিং নিতে আগ্রহী হন। আসলে কোচিং ছাড়া যেকোনো কম্পেটেটিভ পরীক্ষায় ভালো র‍্যাঙ্ক করা খুব কঠিন। তাই একটি ভালো কোচিং সেন্টার খুললে কখনও পড়ুয়ার অভাব হবে না। আবার আপনি এই ব্যবসা শুরু করে তুলনামূলক কম বিনিয়োগেই বেশি পরিমান আয়ের মুখ দেখবেন ।

• কীভাবে একটি কোচিং সেন্টার চালাবেন?
কোচিং সেন্টার খুলতে চাইলে সবার প্রথমে জায়গা নির্বাচন করতে হবে। নিজের জায়গা থাকলে সেখানেই কোচিং সেন্টার বানিয়ে নিতে পারেন। যদি না থাকে তাহলে ভালো জনবহুল কোনো জায়গায় কোচিং সেন্টার খোলা শ্রেয়। কোচিং সেন্টারটিকে আকৃষ্ট করার জন্য নানারকম সরঞ্জাম যেমন:- বেঞ্চ, হোয়াইট বোর্ড / ব্ল্যাক বোর্ড, টেবিল, চেয়ার ইত্যাদির ব্যবস্থা করে নিবেন। তবে যে জিনিসটি সবার আগে মাথায় রাখতে হবে, সেটি হলো ফ্যাকাল্টি (faculty)। মনে রাখবেন, আপনার কোচিং সেন্টারের শিক্ষক-শিক্ষিকাগণই পড়ুয়াদের বেশি আকৃষ্ট করবে। তারা ভালোমতো পড়ালে পড়ুয়াদের মধ্যেই তাদের সুনাম বাড়বে, ফলে বেশি পরিমান পড়ুয়া আপনার কোচিং সেন্টারে পড়তে আসবেন।

ফলে সবসময় নিজের কোচিং সেন্টারে পড়ানোর জন্য ভালো ও সুপরিচিত শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। কোচিং সেন্টার শুরু করার সময় মার্কেটিং -এর ওপরও বিশেষ নজর দেওয়া উচিত। পারলে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বাইরে, জনবহুল এলাকাগুলোতে নিজের কোচিং সেন্টারের জন্য মাইকিং, পোস্টার লাগানো ইত্যাদি কাজ করতে পারেন। তবে কোচিং সেন্টার খোলার শুরুর দিকে ভালো অফার রাখলে বেশি মানুষ আপনার সেন্টারের প্রতি আকৃষ্ট হবেন। চেষ্টা করবেন শুরুর দিকে নানারকম আকর্ষণীয় প্যাকেজ প্ল্যান দেওয়ার যা পড়ুয়া বা চাকরিপ্রার্থীদের চোখে ধরতে পারে।

শুরু করুন জলের ব্যবসা, মাসে ইনকাম লক্ষাধিক, কিকরে করবেন বিস্তারিত জেনে নিন

একটি কোচিং সেন্টার ঠিকমতো বানাতে ৩ থেকে ৪ লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে । যদি আগে থেকেই কোনো ফাঁকা বাড়ি বা অফিসের জায়গা ভাড়া নেওয়া যায় তাহলে খরচ অনেকটা কমে যাবে। আগে থেকেই শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বেতন, পড়ুয়াদের ফি সবকিছু নির্দিষ্ট করে রাখবেন যাতে পরবর্তীকালে নিজের লভ্যাংশ পেতে সমস্যা না হয়। সবকিছু ঠিকঠাক চললে পরবর্তীকালে ক্লাসরুমগুলোতে বড়ো কম্পিউটার স্ক্রিনও লাগাতে পারেন। ফলে পড়ুয়াদেরও পড়াশোনা করতে অনেক সুবিধা হবে। সব মিলিয়ে মোটামুটি বিনিয়োগ করেই এই ব্যবসার মাধ্যমে আপনি প্রতিমাসে সহজেই ১ লক্ষ টাকার বেশি ইনকাম করতে পারবেন। ব্যবসা আরও ভালো হলে ইনকামের পরিমান আপনাআপনিই বহুগুন বেড়ে যাবে।

ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কিত এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ খবর পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে