Many-farmers-are-missing-out-from-PM-Kisan-know-if-your-name-is-in-that-list

ক্ষমতায় আসার পরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্যোগে ভারতের কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে কৃষকদের সাহায্য করার জন্য অনেকগুলি জনকল্যাণমূলক প্রকল্প কার্যকরী করা হয়েছে। কৃষকদের জন্য কার্যকরী এই সকল প্রকল্পগুলির মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য প্রকল্প হলো পিএম কিষাণ যোজনা (PM Kisan Yojana)। ভারতের এগ্রিকালচার এন্ড ফারমার্স ওয়েলফেয়ার ডিপার্টমেন্টের পক্ষ থেকে কার্যকরী এই প্রকল্পটির আওতায় কৃষকদের বছরে তিনটি মাসিক কিস্তিতে ২,০০০ টাকা করে অনুদান দেওয়া হয়ে থাকে। ভারতের অর্থনীতির উন্নতির পাশাপাশি কৃষকরা যাতে কৃষিকাজের জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন দ্রব্য কিনতে গিয়ে ঋণগ্রস্ত না হয়ে পড়ে তা সুনিশ্চিত করাই এই প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য। তবে বর্তমানে দেশজুড়ে উৎসবের ঠিক পূর্বে কৃষকরা পিএম কিষাণের পরবর্তী ইনস্টলমেন্টের টাকা কবে পাবেন তা জানতে উৎসুক হয়ে রয়েছেন। আর তার ঠিক পূর্বেই এক বিশেষ ঘোষণা করা হয়েছে কেন্দ্র সরকারের তরফে। কিন্তু এই যোজনার সুবিধা পেয়ে থাকেন এমন অনেক কৃষকই এই নতুন ঘোষণাটি সম্পর্কে জানেন না। তাই আজ আমরা সকলের সাহায্যার্থে এই পোস্টে আলোচনা করতে চলেছি পিএম কিষাণ সংক্রান্ত এই নতুন আপডেটটি কি, পিএম কিষাণের পরবর্তী ইনস্টলমেন্টের টাকা কবে পাবেন তা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

• চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক পিএম কিষাণ সংক্রান্ত এই নতুন ঘোষণাটি কি:-
পিএম কিষাণ নিয়ে বারংবার বিভিন্ন অভিযোগের সম্মুখীন হতে হচ্ছিলো কেন্দ্র সরকারকে। আর তাই কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিলো যাতে যেসকল অযোগ্য ব্যক্তি পিএম কিষাণ প্রকল্পের অনুদান পাচ্ছেন তাদের অনুদান প্রদান বন্ধ করা যায়। বিভিন্ন রিপোর্ট অনুসারে মনে করা হচ্ছিলো যে, e-kyc করার ক্ষেত্রে কেন্দ্র সরকারের মূল উদ্দেশ্য ছিল এই অযোগ্য ব্যক্তিদের নির্বাচন করা এবং যে টাকা তাদের প্রদান করা হয়েছে তা উদ্ধার করা। আর সেই ভাবনাকে সত্যি করে প্রধান সচিব ডক্টর অরুণ কুমার মেহতা জানিয়েছেন যে, পরবর্তী ইনস্টলমেন্টের টাকা আধারের মাধ্যমে ট্রান্সফার করা হবে। অর্থাৎ পরবর্তী ইনস্টলমেন্টের টাকা কেবলমাত্র তারাই পাবেন যাদের আধার সংযোগ রয়েছে।

BSNL এর এই ধামাকাদার প্ল্যানের কাছে হার মানবে বাকি সব কোম্পানি, মাত্র ১৯ টাকার রিচার্জে পেয়ে যাবেন সারা মাসের ভ্যালিডিটি সহ অন্যান্য সুবিধা

অন্যদিকে, কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে ইতিপূর্বে কৃষকদের ৩১ শে আগস্টের মধ্যে তাদের e-kyc সম্পন্ন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিলো। যদিও e-kyc করার জন্য যবে থেকে কৃষকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তবে থেকেই পিএম কিষাণের সুবিধাভোগীর সংখ্যা কমছে। ২০২১ সালের আগস্ট থেকে নভেম্বরের মধ্যে পিএম কিষাণের সুবিধাভোগীর সংখ্যা ছিলো প্রায় ১১.১৯ কোটি। কিন্তু ২০২১ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২২ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত যেসকল কৃষকদের সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১১.১৫ কোটি। অর্থাৎ কয়েকমাসের ব্যবধানে প্রায় ০.০৪ কোটি সুবিধাভোগী কৃষক বাদ পড়েছেন এই যোজনা থেকে। এর পরবর্তী ইনস্টলমেন্টের ক্ষেত্রে এই যোজনার অধীনে কৃষকদের সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১০.৯২ কোটিতে দাঁড়িয়েছে। অর্থাৎ e-kyc করার নির্দেশ দেওয়ার পর থেকেই ক্রমাগত কমছে সুবিধাপ্রাপ্ত কৃষকদের সংখ্যা।

• পিএম কিষাণের পরবর্তী ইনস্টলমেন্টের টাকা কবে পাবেন কৃষকরা:-
কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমরের ট্যুইট অনুসারে জানা গিয়েছে যে, ৩১ শে আগস্ট e-kyc করার শেষ দিনে কেন্দ্র সরকারের সমস্ত কৃষি আধিকারিকদের নিয়ে একটি বৈঠক করা হয়েছিলো। বিভিন্ন রিপোর্ট অনুসারে জানা গিয়েছে যে, এই বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সেপ্টেম্বর মাসেই আগামী ইনস্টলমেন্টের টাকা পাবেন কৃষকরা। যদিও এ বিষয়ে কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে অফিসিয়াল ভাবে কিছুই জানানো হয়নি। আপনারা কবে অনুদান পাবেন তা আপনারা আপনাদের পিএম কিষাণের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে আপনাদের আবেদনের স্ট্যাটাস চেক করলেই জানতে পারবেন। এছাড়াও পিএম ইভেন্টের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকেও আপনারা জানতে পারবেন আপনারা ঠিক কবে টাকা পেতে চলেছেন।

এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের পেজটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের আইকনে ক্লিক করে আজই যুক্ত হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে