Tata-Company-gives-fifty-thousand-rupees-scholarship-to-every-student-Know-the-details

ভারতের প্রত্যন্ত অঞ্চলের দরিদ্র, অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল এবং পিছিয়ে পড়া জনজাতির ছাত্র-ছাত্রীদের উচ্চশিক্ষা লাভের ক্ষেত্রে সাহায্য করার জন্য বিভিন্ন প্রাইভেট ইনস্টিটিউশনের তরফে ভিন্ন ভিন্ন স্কলারশিপ প্রদান করা হয়ে থাকে। এই স্কলারশিপগুলির মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য স্কলারশিপ হলো টাটা ক্যাপিটাল লিমিটেড এর তরফে পরিচালিত টাটা স্কলারশিপ (Tata Scholarship)। এই স্কলারশিপ সবথেকে আকর্ষণীয় বিষয়টি হলো এই স্কলারশিপের অধীনে ষষ্ঠ শ্রেণীতে পাঠরত শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে স্নাতক স্তরে পাঠরত শিক্ষার্থীরা পর্যন্ত অনুদান পেয়ে থাকেন। আপনার ক্ষেত্রেও যদি আপনার পরিবারের আর্থিক দুরাবস্থা শিক্ষা ক্ষেত্রে অগ্রগতির পথে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়, তবে আপনিও আবেদন করতে পারেন টাটা স্কলারশিপ (Tata Scholarship) এর অনুদানের জন্য।

• এই স্কলারশিপের আবেদনের ক্ষেত্রে আবশ্যিক যোগ্যতা কি কি ?
১. এই স্কলারশিপে আবেদনের ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই ভারতবর্ষের স্থায়ী নাগরিক হতে হবে।

২. আবেদনকারী ছাত্র অথবা ছাত্রীকে অবশ্যই ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে শুরু করে স্নাতক স্তরে পাঠরত হতে হবে।

৩. আবেদনকারীকে অবশ্যই ভারত সরকার স্বীকৃত যেকোনো বিদ্যালয় অথবা কলেজের ছাত্র অথবা ছাত্রী হতে হবে।

আবেদন করুন SBI আশা স্কলারশিপে এবং পেয়ে যান বার্ষিক ১৫০০০ টাকা

৪. ষষ্ঠ শ্রেণী থেকেই স্নাতক স্তরে পাঠরত ছাত্রছাত্রীদের এই স্কলারশিপের অনুদানের জন্য আবেদনের ক্ষেত্রে অন্ততপক্ষে ৬০ শতাংশ নম্বর পেতে হবে।

৫. এই স্কলারশিপের জন্য আবেদনের ক্ষেত্রে ছাত্র অথবা ছাত্রীর পরিবারের বার্ষিক আয় অবশ্যই ৪ লক্ষ টাকার কম হতে হবে।

৬. টাটা কোম্পানি এবং BuddyforStudy এর অধীনে কর্মরত ব্যক্তিদের সন্তানরা এই স্কলারশিপের অনুদানের জন্য আবেদন করতে পারবেন না।

• এই স্কলারশিপের অধীনে অনুদানের পরিমাণ কতো ?
এই স্কলারশিপের অধীনে অনুদান প্রদানের ক্ষেত্রে এই স্কলারশিপটিকে মোট তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে। সেগুলি হলো:-
১. The Tata Scholarship Programme for Class 6 to 12 Students
২. The Tata Scholarship Programme for Professional Undergraduate Courses
৩. The Tata Scholarship Programme for General Undergraduate Courses


১. The Tata Scholarship Programme for Class 6 to 12 Students -এর অধীনে ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে শুরু দ্বাদশ শ্রেণীতে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রীদের ৮০ শতাংশ টিউশন ফি দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১২০০০ টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়ে থাকে।
২. The Tata Scholarship Programme for Professional Undergraduate Courses -এর অধীনে ডাক্তারি, ইঞ্জিনিয়ারিং, আইন সহ বিভিন্ন প্রফেশনাল কোর্সে স্নাতকস্তরে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রীদের ৮০ শতাংশ টিউশন ফি অথবা সর্বোচ্চ ৫০,০০০ টাকা প্রদান করা হয়ে থাকে।
৩. The Tata Scholarship Programme for General Undergraduate Courses -এর অধীনে বিএ, বিএসসি, বিবিএ, ডিপ্লোমা, পলিটেকনিক সহ বিভিন্ন কোর্সে স্নাতক স্তরে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রীদের ৮০ শতাংশ টিউশন ফি অথবা সর্বোচ্চ ২০,০০০ টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়ে থাকে।
এই স্কলারশিপে কতো টাকা অনুদান পাওয়া যাবে তা নির্ভর করছে ছাত্র অথবা ছাত্রীর টিউশন ফি এর পরিমাণের ওপর।

• কিভাবে স্কলারশিপের জন্য কিভাবে আবেদন করবেন ?
এই স্কলারশিপের অনুদানের জন্য আবেদনের প্রক্রিয়া সম্পূর্ণভাবে অনলাইনে সম্পন্ন করতে হবে।
১. এর জন্য প্রথমেই আপনাকে BuddyforStudy এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট https://www.buddy4study.com/page/the-tata-capital-pankh-scholarship-programme -এ যেতে হবে।

২. উপরোক্ত তিনটি ক্যাটাগরির মধ্যে আপনি যে ক্যাটাগরিতে আবেদনের যোগ্য সেই ক্যাটাগরিতে আপনাকে ক্লিক করতে হবে।

৩. এরপর আপনাকে ওই ক্যাটাগরির অন্তর্ভুক্ত Apply now অপশনে ক্লিক করতে হবে।

৪. এরপর আপনার সামনে একটি নতুন পেজ আসবে। ওই পেজে আপনাকে আপনার সমস্ত তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে।

৫. এরপর ওই আবেদনপত্রে উল্লিখিত সমস্ত নথি সঠিকভাবে আপলোড করতে হবে।

৬. সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হলে submit অপশনে ক্লিক করলেই আপনার আবেদনের প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে।

বাংলা আবাস যোজনার অধীনে ৫০ লক্ষ বাড়ি নির্মাণের অনুদান পেতে চলেছে বাংলার মানুষ, কারা পাবেন জেনে নিন বিস্তারিত

• আবেদনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নথি কোনগুলি ?
১. ফটো আইডেন্টিটি প্রুফ অথবা আধার কার্ড।
২. আবেদনকারীর সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
৩. পরিবারের বাৎসরিক আয়ের সার্টিফিকেট।
৪. নতুন করছে ভর্তির রশিদ।
৫. আবেদনকারীর ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সমস্ত তথ্য।
৬. বিগত পরীক্ষার মার্কশিট।
৭. বিশেষভাবে সক্ষম ছাত্রছাত্রীদের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী সার্টিফিকেট।
৮. জাতিগত শংসাপত্র।

• এই স্কলারশিপে নির্বাচনের পদ্ধতি কি ?
টাটা ক্যাপিটাল লিমিটেডের কর্তৃপক্ষের তরফে যে সকল ছাত্র-ছাত্রীরা এই স্কলারশিপের অনুদানের জন্য আবেদন করেছেন তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং পরিবারের আয়ের নিরিখে শর্টলিস্ট করা হয়। এরপর টেলিফোন ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে নির্বাচন করা হয় কারা স্কলারশিপের অধীনে অনুদান পেতে চলেছেন।

• আবেদনের সময়সীমা:-
এই স্কলারশিপের অনুদানের জন্য আবেদনের প্রক্রিয়া সাধারণত জুন মাস থেকে শুরু হয় এবং আগস্ট মাসে তা শেষ হয়।

এইরকম আরও স্কলারশিপ সংক্রান্ত নানান গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের পেজটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের আইকনে ক্লিক করে আজই যুক্ত হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে